আজ গরম ভাতে ভুনা শুটকি

গরম ভাতে লইট্টা শুটকি ভুনা

বাঙালীদের কাছে এই পদটি অমৃত-সমান। তবে ঘটি-বাঙালের গণ্ডি পেরিয়ে এই পদটি অসংখ্য বাঙালির কাছেই অত্যন্ত উপাদেয়। শুটকি মাছের কথা বলছি। আজকের রেসিপিতে রইল লইট্টা শুটকির ভুনা।

শুটকি মাছ। এটি বাংলাদেশের খুবই বিখ্যাত একটি পদ। অনেকে অবশ্য নাম শুনলেই পালিয়ে যান। আবার অনেকের কাছেই শুটকি অমৃতের সমান! শুটকি অনেক রকমের হয়। লইট্যা শুটকি বা লটে মাছের শুটকি, চিংড়ি শুটকি, সিদল শুটকি…আরও কত কী! আজকের রেসিপিতে রইল লটে শুটকির ভুনা। উপকরণ বা পদ্ধতি এক রেখে যে কোনও ভুনা শুটকির পদই এ ভাবে বানিয়ে ফেলতে পারবেন। এ বার জেনে নেওয়া যাক ভুনা শুটকির রেসিপি।

৪-৫ জনের জন্য ভুনা শুটকি বানাতে লাগবে:

লইট্টা শুটকি ৫ কাপ বা মাঝারি মাপের এক বাটি (২৫০-৩০০ গ্রাম)

৪ কাপ কুঁচানো পেঁয়াজ

১/৪ কাপ রসুন বাটা (২ টেবিল চামচ)

২ টো তেজ পাতা

৫-৬টা কাঁচালঙ্কা (স্বাদ মতো বাড়িয়েও নিতে পারেন)

২ টেবিল চামচ আদা বাটা

১ টেবিল চামচ লাল লঙ্কার গুঁড়ো

১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো

১ টেবিল চামচ জিরা গুঁড়ো

১ টেবিল চামচ ধনে গুঁড়ো

পরিমাণ মতো সরষের তেল

স্বাদ মতন লবন

সামান্য চিনি

ভুনা শুটকি বানানোর পদ্ধতি:

প্রথমেই শুটকি মাছের মাথা, লেজ বাদ দিয়ে গরম জলে ১০-১৫ মিনিট মাঝারি আঁচে ফুটিয়ে নিন।

ফুটানো জল থেকে তুলে উষ্ণ জলে আরও ১০ মিনিট রেখে দিন। এরপর জল থেকে তুলে ছোট ছোট টুকরো করে নিন।

এবার প্যানে তেল গরম করে তাতে তেজপাতা, কুঁচানো পেঁয়াজ, রসুন বাটা, আদা বাটা, কাঁচালঙ্কা দিয়ে ১৫ মিনিট কম আঁচে কষিয়ে নিয়ে টুকরো করা মাছ দিয়ে দিন।

এরপর ভাল করে কষাতে থাকুন যতক্ষণ না ভাজা ভাজা হচ্ছে।

ভাল মতো ভাজা হয়ে গেলে নামিয়ে নিয়ে তেজ পাতা সরিয়ে দিয়ে ব্লেন্ডারে ভাল করে ব্লেন্ড করে নিন বা একটু বেটে নিতে পারেন। প্রয়োজনে সামান্য উষ্ণ জল দিতে পারেন।

এরপর একই প্যানে তেল গরম করে তাতে ব্লেন্ড করা মাছ, লঙ্কার গুঁড়ো, হলুদ, জিরা, ধনে গুঁড়ো দিয়ে ২০-২৫ মিনিট আঁচ একদম কমিয়ে ভাজতে থাকুন।

ভাজা হয়ে গেলে নামানোর আগে সামান্য চিনি দিয়ে মিশিয়ে নামিয়ে নিন।

ব্যাস, এবার গরম গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন জিভে জল আনা ভুনা শুটকি।

Share this post

Change